পাকির চেয়ারম্যানকে গুলী; অস্ত্র ও গুলির খোসা গেল কই?

প্রকাশিত : ৩ অক্টোবর, ২০২০

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার ৯ নং বল্লা ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান হাজী চান মাহমুদ পাকির আলীর দুর্নীতির বিষয় নিয়ে সাপ্তাহিক গণবিপ্লব পত্রিকায় ধারাবাহিক সংবাদ প্রকাশের পর মুখ খুলতে শুরু করেছে ইউনিয়নবাসী। চায়ের দোকান থেকে শুরু করে পাড়া মহল্লায় আলোচনার ঝড় বইছে ‘পাকির চেয়ারম্যানকে গুলি করা সেই অবৈধ অস্ত্র ও গুলির খোসা গেল কই?’

জানা যায়, গত বছরের ৮ অক্টোবর পাকির চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ‘তাঁতী সমিতির নামে ৬৫ কোটি টাকা আত্মসাতের’ বিষয়ে একাধিক পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হয়। এবং সাপ্তাহিক গণবিপ্লব পত্রিকায় পাকির চেয়ারম্যানের বাড়ির পাশের কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ীদের নিয়েও সংবাদ প্রকাশ হলে ২২ দিনের মাথায় ৩০ অক্টোবর রাতে বল্লা বাজার থেকে মোটরসাইকেল যোগে বাড়ি ফিরছিলেন পাকির চেয়ারম্যান। পথে বল্লা বাজারের দক্ষিণ পাশে আসলে পিছন থেকে দু’টি মোটর সাইকেলে চারজন মুখোশধারী ব্যক্তি চলন্ত অবস্থায় তাকে লক্ষ্য করে ৩ রাউন্ড গুলি ছুড়ে। গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে যান তিনি। পরের দিন কালিহাতী থানায় অজ্ঞাতদের আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা নং ২২/৩১-১০-২০১৯।

এ ঘটনায় সখীপুর উপজেলার কাহার্তা রামখা গ্রামের শাজাহান মিয়ার ছেলে শাওন (১৯), কচুয়া গ্রামের লিয়াকত আলীর ছেলে শহিদুল (১৯), কাহার্তা রামখা গ্রামের তোফাজ্জল সিকদারের ছেলে সৌমিক সিকদার (১৮), সখীপুর উত্তরপাড়া গ্রামের সাদেক আহাম্মদের ছেলে সাগর মিয়া (২৫), একই গ্রামে আব্দুস ছামাদের ছেলে রাকিব হাসান (২০), কাহার্তা গ্রামের হযরত আলীর ছেলে উজ্জল (২২), কালিহাতী উপজেলার খিলগাতী গ্রামের ওসমান গণির ছেলে সুজন আহমেদ (১৯) এবং রতনগঞ্জ গ্রামের মৃত মেহের সওদাগরের ছেলে সবুজ সওদাগরকে (২৯) পুলিশ গ্রেপ্তার করে রিমান্ডে নিলেও কেউ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেয় নি। পরে তারা সকলেই জামিনে মুক্তি পায়।

সংবাদ প্রকাশের পর সরেজমিনে বল্লা ও রামপুর বাজারে গেলে, চায়ের দোকানে আড্ডারত অনেকেই বলছে, চেয়ারম্যান পাকিরকে গুলি করা হয়েছিলো, নাকি তিনি তার দুর্নীতির খবর ঢাকতে গুলির নাটক সাজিয়ে ধামাচাপা দিয়েছে। তবে যে অস্ত্র দিয়ে গুলি করলো সেটিও উদ্ধার হলো না এখনো। আর গুলি করলে তো গুলির খোসা পড়ে থাকতো। তাহলে কি সন্ত্রাসীরা গুলি করার পর ওই খোসাও কি নিয়ে চলে গেছে? তবে এবার কি দিয়ে তার দুর্নীতি ঢাকবে? ভুক্তভুগীরা ও ইউনিয়নবাসি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের তদন্ত কমিটি গঠন করে, তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থার জন্য হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এদিকে বল্লায় আহলে হাদিস সমাজ কর্তৃক শত বছরের ওরশ পালন বন্ধ করে দেয়ার অভিযোগ রয়েছে চেয়ারম্যান পাকিরের বিরুদ্ধে। যা বাংলাদেশের সংবিধানের ২ (ক) অনুচ্ছেদ ও ১২ এর অনুচ্ছেদ (ঘ) উপ- অনুচ্ছেদ লঙ্ঘন করেন। ( চলমান)।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া