জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতির ছেলেসহ দুই চোর আটক

প্রকাশিত : ১ মে, ২০২০

টাঙ্গাইল ১ মে ২০২০ : ‘টাঙ্গাইল জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতির ছেলে কুখ্যাত ছিনতাইকারী ও মোটরসাইকেল চোরচক্রের সদস্য বিশাল সহ আরও একজনকে গ্রেপ্তার করেছে মডেল থানা পুলিশ’। ‘বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) রাতে শহরের আকুরটাকুর পাড়া এলাকায় জৈনক মোজাফফর হোসেনের বাড়িতে ডাকাতি করতে গেলে স্থানীয় লোকজন তাদের দুজনকে হাতেনাতে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে’।

‘গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছেন জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি একই এলাকার মির্জা আনোয়ার হোসেন বাবুলের ছেলে আনোয়ার হোসেন বিশাল (২৪) ও তার সহযোগী হত্যা মামলার আসামি জয়নাল আবেদীনের ছেলে সাব্বির আহমেদ অমিত (২৩)’।

স্থানীয়রা জানান, ‘বিশাল ও তার সহযোগীরা এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে ছিনতাই, মাদক ব্যবসা ও মোটরসাইকেল চুরি করে আসছিল। তবে এলাকাবাসী এ নিয়ে মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছিলেন না। শনিবার রাতে আকুর টাকুর পাড়া মোজাফফর হোসেনের বাড়িতে ডাকাতির চেষ্টা করে তারা। পরে স্থানীয় লোকজন টের পেয়ে তাদের হাতেনাতে আটক করে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে। স্থানীয়দের অভিযোগ বিশাল এর আগেও গ্রেপ্তার হওয়ার পর তার বাবা সরকারি দলের লোক হওয়ার কারণে তাকে ছেড়ে দিতে বাধ্য হয় পুলিশ। এছাড়া শুক্রবার সকাল থেকে রাত পর্যন্ত বিশালকে ছাড়িয়ে নিতে তার বাবা ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের কয়েকজন নেতা থানায় তদবির শুরু করেছে। এতে করে এলাকাবাসীর মধ্যে চরম ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। তারা জানান বিশাল এভাবে বারবার পার পাওয়ার কারণে এলাকাবাসী নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। বিশাল শহরের ছিনতাই ও মোটরসাইকেল চোরের অন্যতম হোতা হিসেবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তালিকায় থাকলেও তার বাবার কারণে বারবার পার পেয়ে যাচ্ছে। সম্প্রতি ইয়াবা সেবনের সময় বিশাল সহ তার কয়েকজন বন্ধুকে আটক করে এলাকাবাসী। পরে এ নিয়ে সালিশ বৈঠক করা হয়েছে’।

এদিকে সাংবাদিক সুমন কুমার রায়ের মোটরসাইকেল ছিনতাই করার চেষ্টা করেন দুর্বৃত্তরা। গত বুধবার রাত সাড়ে ১১ টার দিকে সাংবাদিক সুমন কুমার রায় দৈনিক মজলুমের কণ্ঠের কাজ শেষে মোটরসাইকেল যোগে শহরের কাগমারা মির্জামাঠ এলাকায় তার বাড়িতে ফিরছিলেন। কাশেম মাল্টি প্রজেক্টের সামনে পৌছালে সিটি সাইবার ক্যাফের ইন্টারনেট সংযোগের তারের সাথে তার গলায় ফাঁস লেগে তার ছিড়ে যায়। তাৎক্ষনিক মোটরসাইকেল ব্রেক করলে কাশেম মাল্টি প্রজেক্টের ভিতর থেকে কয়েকজন লোক বেরিয়ে আসেন। তারা সুমন কুমার রায়ের কাছে তার কিভাবে ছিড়লো সেটা জানতে চায়। পরে ওই এলাকার সাংবাদিক শহীদুল ইসলাম ফোন পেয়ে এগিয়ে আসলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়।

এ বিষয়ে মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোশারফ হোসেন জানান, ‘করোনার কারণে টাঙ্গাইল শহরে ১০টি চেকপোষ্ট স্থাপন করা হয়েছে। সেসব চেকপোষ্টেগুলো সবাইকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এছাড়া এই সময়ে শহরে চুরি, ছিনতাই যেন না হয় সেদিকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সর্তক রয়েছে। বৃহস্পতিবার (১ মে) রাতে শহরের পশ্চিম আকুরটাকুর পাড়া এলাকায় জনৈক মোজাফফর হোসেনের বাড়িতে চুরি করার সময় উপস্থিত জনগন ২ চোরকে হাতেনাতে ধরে পুলিশের কাছে সোর্পদ করেছে। তাদের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা গ্রহণ করে শনিবার (২ মে) আদালতে হাজির করা হবে’।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া