মির্জাপুরে ভাঙা সাঁকোই ৬ গ্রামের ভরসা

প্রকাশিত : ৬ ডিসেম্বর, ২০১৯

মির্জাপুর ৬ ডিসেম্বর : মির্জাপুরের জামুর্কী ইউনিয়নের পাকুল্যা পশ্চিমপাড় খালের ওপর সেতুর অভাবে শিক্ষার্থীসহ ৬ টি গ্রামের হাজারো মানুষের একমাত্র যাতায়াতের ভরসা হচ্ছে ঝুঁকিপূর্ন কাঠের সাঁকোটি। এতে যে কোন সময় দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা রয়েছে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন।


জানা গেছে, পাকুল্যা পশ্চিমপাড়া ওই খালটির ওপর কাঠের সাঁকোটি গত এক বছর আগে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে নির্মিত হয়। কিন্ত ইতিমধ্যেই তা চলাচলে ঝুঁকিপুর্ন হয়ে পড়েছে। ঝুঁকিপুর্ন এই সেতুটি দিয়ে জামুর্কী ইউনিয়নের চরপাকুল্যা ও পাকুল্যা বাদ্যকরপাড়ার লোকজন ছাড়াও পার্শবর্তী দেলদুয়ার উপজেলার মৈষ্টা, আরমৈষ্টা, কামান্না, কামান্না চরপাড়া, বড়মৈষ্টা গ্রামের কোমলমতি শিক্ষার্থীসহ শতশত মানুষ প্রতিদিন যাতাযাত করে থাকে। সাঁকোটির এই দুর্বস্থার কারণে যে কোন সময় দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে বলে স্থানীয়রা জানান।

পাকুল্যা বাজারের ব্যবসায়ী তপন শেট, কবি ও লেখক গোপাল কর্মকার গণবিপ্লবকে বলেন, ঝুঁকিপুর্ন এই সাঁকো দিয়ে কোমলমতি শিক্ষার্থীসহ শতশত মানুষ খুব ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হয়ে থাকে। ঝুঁকিপুর্ন এই সাঁকোটিতে যে কোন সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে তারা জানিয়েছেন।


এ বিষয়ে জামুর্কী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলী এজাজ খান চৌধুরী রুবেল সাঁকুটি যে পারাপারে ঝুঁকিপুর্ন হয়ে পড়েছে তা স্বীকার করে গণবিপ্লবকে বলেন, উপজেলা পরিষদের সভায় ওইস্থানে একটি পাকা সেতু নির্মাণের প্রস্তাব করা হয়েছে।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া