অমর একুশে ও আমাদের বাংলা ভাষা

প্রকাশিত : ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০১৬

বুলবুল bulbul

*মু. জোবায়েদ মল্লিক বুলবুল*

হাজার শহীদের রক্ত আর ভাষা সৈনিকের আত্মত্যাগে অর্জিত ‘বাংলা’ আজ বিশ্ব মাতৃভাষা। ১৯৫২ সালের হৃদয় বিদারক ঘটনার আগে থেকে শুরু হওয়া মাতৃভাষা আন্দোলন পূর্ণাঙ্গ রূপ পায় এ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি। রফিক, বরকত, জব্বার সহ অনেকের রক্তে অমর হয়ে ওঠে ১৯৫২ সালের ‘একুশে’। এই যে ত্যাগ-তিতিক্ষা আর তাজা রক্তের বিনিময়ে অর্জিত ‘বাংলা ভাষা’, আমরা তার ‘মান’ রাখতে পারছি? অনেকেই হয়তো ভাষার বিবর্তনের অজুহাত দেখাতে পারেন, কিন্তু তা মোটেই গ্রহনীয় বলে মনে করিনা।
পত্র-পত্রিকাগুলোকে আমরা চলমান ইতিহাস হিসেবেই দেখতে অভ্যস্ত। দেশের কৃষ্টি, সংস্কৃতি, ইতিহাস, ঐতিহ্য, অর্থনীতি, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধূলা সহ সর্বস্তরেই পত্র-পত্রিকা ও সাময়িকীগুলো ক্রিড়ানকের ভূমিকা পালন করে থাকে। বর্তমান ডিজিটালাইজড সমাজে পত্র-পত্রিকা ও সাময়িকীর সঙ্গে নতুন যোগ হয়েছে ‘অনলাইন নিউজ পোর্টাল বা অনলাইন পত্রিকা’। আমি অবশ্য ‘অনলাইন পত্রিকা’ বলে ‘নিউজ পোর্টাল’কে পত্র-পত্রিকা ও সাময়িকীর স্বীকৃতি দিতে নারাজ। কারণ, হাতে গোনা কয়েকটি ‘নিউজ পোর্টাল’ই পত্রিকা হতে পেরেছে, সংখ্যাগড়িষ্ঠ অন্যরা নয়।
দেশের পত্র-পত্রিকাগুলোও আজকাল বাংলা ভাষার প্রতি এক প্রকার উদাসিন বলেই প্রতীয়মান। প্রমিত বাংলা বানান, শব্দ ও বাক্য ব্যবহারে পত্র-পত্রিকা ও সাময়িকীগুলোতে চলছে হ-য-ব-র-ল অবস্থা। কেউ লিখছে ‘সরকারি’ তো কেউ লিখছে ‘সরকারী, আবার কেউ লিখছে ‘স্টল’ তো অন্যে লিখছে ‘ষ্টল’, কেউ লিখছে ‘কাঙ্খিত’ অন্যে লিখছে ‘কাক্সিক্ষত’ কেউ বা আগ বাড়িয়ে ‘কাঙিখত’। ‘বাংলা নিউজ’ নামক নিউজ পোর্টাল তো তাদের লেখায় একটি ‘নির্দিষ্ট স্থান’কে এলাকা বলেই চালিয়ে দিচ্ছে অবলীলায়। এক্ষেত্রে পাড়া, মহল্লা, গ্রাম ‘এলাকার’ বেড়াজালে একাকার হয়ে যাচ্ছে। ধরা যাক, বঙ্গবন্ধুসেতু-ঢাকা মহাসড়কে টাঙ্গাইল জেলার সদর উপজেলার ঘারিন্দা গ্রামে একটি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে। ওই সংবাদে তারা বরাবরই লিখে আসছে ঘারিন্দা ‘এলাকায়’ দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। তারা স্থানটির নাম বললেও পাশে এলাকা শব্দটি জুড়ে দিচ্ছে। ফলে ‘ঘারিন্দা’ পাড়া, গ্রাম না ইউনিয়ন তা স্পষ্ট হচ্ছেনা। অবস্থাদৃষ্টে প্রতীয়মান হচ্ছে পাড়া, মহল্লা, গ্রাম, মৌজা, ইউনিয়ন, উপজেলা, জেলা এসবের সংজ্ঞাই তারা ভুলে গেছে বা ইচ্ছে করেই পরিবর্তনের চেষ্টা করছে। জানামতে, সংবাদ কর্মীরা সাধারণত দুটি গ্রাম বা পাড়া অথবা ইউনিয়নের সীমান্ত সংলগ্নে সংঘটিত সংবাদ ঘটনার স্থান সঠিকভাবে নির্ধারণ অপারগতায় ‘এলাকা’ শব্দটি অধিক ব্যবহার করে থাকে। তাহলে কি পাঠকরা ধরে নেবে ‘তাদের এ ধরণের কোন সংবাদেই তারা স্থান নির্দিষ্ট করতে ব্যর্থ?’ কোন কোন পত্রিকা ওটাকে অনুসরন করে ভ্রান্তিতে উৎসাহ দিচ্ছে।
বাংলা ভাষাটা আজকাল একটা অরাজকতার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এভাবেই এর মধ্যে অনেক গোঁজামিল ঢুকেছে। সেটা মূলত বানান এবং ব্যাকরণের জটিলতা। একই শব্দের বানান হরেক রকমের, এটি অন্য ভাষায় পাওয়া দুস্কর। বাংলা আমাদের মাতৃভাষা হলেও তার ব্যাপক দুরবস্থা ও হেনস্থা চলছে। এটা আজ নয় চলছে দীর্ঘদিন ধরে। এক্ষেত্রে প্রমিত বাংলা বানান রীতিও কম দায়ী নয়, প্রমিত বানানের নিয়মেও রয়েছে শুভঙ্করের খেলা। ‘বাংলা’ শব্দটিরই বানান ৬ প্রকার হয়, বাঙ্গালা, বাঙ্গলা, বাঙ্গ্লা, বাঙলা, বাঙ্লা, বাংলা। ‘সবিশেষ’ শব্দটির বানান প্রায় ২৪ প্রকার বলে গবেষকদের অভিমত। যদিও এত প্রকারে সত্যিই লেখা হয় না। তাহলে অন্য নানা শব্দে তেমন বিভ্রান্তি কতই তো হতে পারে! বানানে এই বিভ্রম নিয়েই আমাদের চলাচল, চলাচল চলমান ইতিহাসেরও। বাংলায় প্রায় দেড় লক্ষ শব্দ (ইংরেজিতে সাড়ে চার লক্ষ শব্দ) আছে। বাংলার এই দেড় লক্ষ শব্দের প্রতিটির শুদ্ধতা আনতে পারলে(একাধিক বানানের হলেও) মায়ের ভাষাকে শুদ্ধতায় পৌঁছে দেয়া সম্ভব। কিন্তু আমরা তা করছি না। কোন রকমে চালিয়ে নিচ্ছি, জেনে-না জেনে ভাষার ক্ষতি করছি; আবার বিদেশি ভাষার প্রতি দরদ দেখাতে গিয়ে ইচ্ছাকৃতভাবে প্রিয় ‘বাংলা’কে নির্বাসনে পাঠাতে সহযোগিতা করছি।
লক্ষ্য করলেই দেখা যাবে, আমাদের চলমান ইতিহাসের এক-একটি কাগজের নিজস্ব বানান ও ভাষা রীতি আছে, প্রতিটি সাময়িক পত্রিকারও নিজস্ব বানান রীতি আছে, প্রতিটি প্রকাশনা সংস্থার নিজস্ব বানান রীতি আছে, প্রতিটি অভিধানের নিজস্ব বানান রীতি আছে, প্রত্যেক প-িত ব্যক্তির নিজস্ব বানান রীতি আছে। বিশেষ করে পশ্চিমবঙ্গে এ অবস্থাটা ব্যাপক প্রচলিত। সেখানে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটা বানানরীতি, আনন্দবাজার গোষ্ঠির একটা, আজকালের একটা, চলন্তিকা বিশ্বকোষের একটা……এ রকম অসংখ্য বানান সেখানে প্রচলিত। আমাদের বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভে পশ্চিমবঙ্গের প্রভাবটা বেশ ঝাঁকিয়ে বসেছে।
প্রমিত বাংলা বানানে তৎসম অর্থাৎ বাংলা ভাষায় ব্যবহৃত অবিকৃত সংস্কৃত শব্দের বানান যথাযথ ও অপরিবর্তিত থাকবে। কারণ এসব শব্দের বানান ও ব্যাকরণগত প্রকরণ ও পদ্ধতি নির্দিষ্ট রয়েছে। যেসব তৎসম শব্দে ই, ঈ বা উ, ঊ উভয়ই শুদ্ধ, সেসব শব্দে কেবল ই বা উ এবং তার -কার চিহ্ন ি ও ু ব্যবহৃত হবে। যেমন- কিংবদন্তি, খঞ্জনি, চিৎকার, ধমনি, সরণি, সূচিপত্র ইত্যাদি। রেফ(র্ )-এর পর ব্যঞ্জনবর্ণের দ্বিত্ব হবে না। যেমন- অর্চনা, অর্জন, অর্থ, কার্য, গর্জন, মূর্ছা, কার্তিক, বার্ধক্য, বার্তা, সূর্য ইত্যাদি। ক খ গ ঘ পরে থাকলে পদের অন্তস্থিত ম স্থানে অনুস্বার ‘ং’ লেখা যাবে। যেমন- অহংকার, ভয়ংকর, সংগীত, সংঘটন ইত্যাদি। আবার বিকল্পে ঙ লেখা যাবে। তবে ক্ষ-এর পূর্বে সর্বত্র ঙ হবে। যেমন-আকাক্সক্ষা।
অন্যদিকে, সকল অ-তৎসম অর্থাৎ তদ্ভব, দেশী, বিদেশী, মিশ্র শব্দে কেবল ই এবং উ এবং এদের -কার চিহ্ন ি ু ব্যবহৃত হবে। এমনকি স্ত্রীবাচক ও জাতিবাচক ইত্যাদি শব্দের ক্ষেত্রেও এই নিয়ম প্রযোজ্য হবে। যেমন- গাড়ি, চুরি, দাড়ি, বাড়ি, ভারি, শাড়ি, হিজরি, আরবি, বাঙালি, ইংরেজি, জাপানি, জার্মানি, দিদি, বুড়ি, ছুঁড়ি, নিচে, নিচু, ইমান, চুন, মুলা, উনিশ, উনচল্লিশ ইত্যাদি। অনুরূপভাবে, -আলি প্রত্যয়যুক্ত শব্দে ই-কার হবে। যেমন- খেয়ালি, বর্ণালি, মিতালি, সোনালি, হেঁয়ালি। কোনো কোনো স্ত্রীবাচক শব্দের শেষে ঈ-কার দেওয়া যেতে পারে। যেমন- রানী, পরী, গাভী। কিন্তু ‘রানি’ বানানের ভুক্তিতে প্রথমেই আছে রানি, তারপরে আছে রানী। অর্থাৎ ‘রানি’ বানানটিকে অধিকতর প্রমিত বলে ধরা হয়েছে। তাহলে, কোনো কোনো স্ত্রীবাচক শব্দের শেষে ঈ-কার দেওয়া যেতে পারে। যেমন- রানী, পরী, গাভী এই নিয়মের কোন যৌক্তিকতা থাকে কী? অপরদিকে, ‘পরি’ একটি সংস্কৃত উপসর্গ। যেমন- পরিশুদ্ধ, পরিমাণ, পরিণাম ইত্যাদি। আর, ‘পরী’ শব্দটির অর্থ পক্ষবিশিষ্টা কল্পিত সুন্দরী। ‘পক্ষবিশিষ্টা কল্পিত সুন্দরী’ অর্থে ‘পরি’ শব্দটি ব্যবহার কেন? কেন এই অর্থে ‘পরী’ শব্দটি ব্যবহার নয়?
প্রমিত বানানে প্রাণী, ঈ-কার দিয়ে লেখা হচ্ছে; কিন্তু প্রাণিবিদ্যা, ই-কার দিয়ে লেখা হচ্ছে। আবার, শ্রেণি লিখতে ই-কার ব্যবহার করে লিখেছে শ্রেণি, ২য় ভুক্তিতে লিখেছে শ্রেণী। একইভাবে, শ্রেণিসংগ্রাম ও শ্রেণীসংগ্রাম। এখন ‘প্রাণী’ বানানে ঈ-কার লেখা গেলে ‘শ্রেণি’ বানানে ই-কার কেন? ঈ-কার লেখা যাবে না কেন? উত্তর হয়তো আছে, সন্তোষজনক নয়।
সর্বনাম পদরূপে এবং বিশেষণ ও ক্রিয়া-বিশেষণ পদরূপে কী শব্দটি ঈ-কার দিয়ে লেখা হবে। যেমন- কী করছ? কী পড়ো? কী খেলে? কী আর বলবো? কী যে করি! এটা কী বই? কী করে যাব? কী বুদ্ধি নিয়ে এসেছিলে? কী আনন্দ! কী দুরাশা! ইত্যাদি। অন্য ক্ষেত্রে অব্যয় পদরূপে ই-কার দিয়ে কি শব্দটি লেখা হবে। যেমন- তুমিও কি যাবে? সে কি এসেছিল? কি বাংলা কি ইংরেজি উভয় ভাষায় তিনি পারদর্শী। পদাশ্রিত নির্দেশক টি-তে ই-কার হবে। যেমন- ছেলেটি, লোকটি, বইটি।
অধিকাংশ বাংলা ব্যবহারকারী প্রশ্নবোধক কি ও কী- কে সাধারণভাবে যে প্রশ্নের উত্তর এক শব্দে প্রকাশ করা যায় সে ক্ষেত্রে কি এবং যার উত্তর একাধিক শব্দে বা বাক্যে প্রকাশ করতে হয় সেখানে কী ব্যবহার করছে।
আজকাল পত্র-পত্রিকা ও সাময়িকী এবং নিউজ পোর্টালে বাংলা ভাষায় আত্মীকৃত ও প্রচলিত কিছু কিছু ইংরেজি বানানের ক্ষেত্রে ‘শ, ষ, স’ প্রভৃতির ন্যায় ব্যবহার ও উচ্চারণে রহস্যজনক কারণে ‘ষ’ বর্ণটির ওপর অযাচিত চাপ লক্ষ করা যায়। যেমন- ষ্টেশন, ষ্টুডিও, পোষ্ট, রেষ্টুরেন্ট, হোষ্টেল, লাষ্ট, ফার্ষ্ট, ইত্যাদি। নিয়ম অনুসারে এগুলো যথাক্রমে স্টেশন, স্টুডিও, পোস্ট, রেস্টুরেন্ট, হোস্টেল, লাস্ট, ফার্স্ট ইত্যাদি হওয়ার কথা। যেন বাংলা ভাষার অন্য দুটি স-বর্ণ (শ ও স) প্রায় বর্জনের প্রতিযোগিতা।
আমি ভাষা গবেষক নই, সামান্য একজন সংবাদ কর্মী। দেশের সংবাদপত্র জগতে প্রায় ৩৪ বছরের পদচারনায় নানা উত্থান-পতন দেখেছি। বাংলা ভাষারও অগ্রগতি হয়েছে, মহান একুশের হাত ধরে বাংলা আজ ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা’। তবুও কোথায় যেন ঘাটতি রয়ে গেছে, সর্বস্তরে বাংলা ভাষা চালু হচ্ছেনা, ভাষা ব্যবহারে জাতীয় প্রতিষ্ঠানগুলো সচেতনতা দেখাতে ব্যর্থ হচ্ছে। বাস্তবতায় দেখেছি, কিছু কিছু প্রতিষ্ঠান আছে, আছে কিছু কিছু শিক্ষার্থী যারা বানান বা বাক্যরীতির ভুল প্রয়োগ দেখিয়ে দেওয়ার বিষয়টিই সহজভাবে নেয় না বা নিতে চায় না(ভাবটা এমন যেন আত্মসম্মানে ঘা লেগেছে)। তারা আগে প্রকাশিত বিভিন্ন বইয়ে মুদ্রিত বানান বা ইন্টারনেটে গুগলে সার্চ দিয়ে বানান দেখিয়ে এক ধরনের শ্লাঘা অনুভব করে। আবার কখনো কখনো এরকম আব্দারও থাকে, যেন পাঠক বা ভুক্তভোগি বানানের ভুলগুলো ক্ষমা করে দেয়! কী আশ্চর্য মনোবৃত্তি!
১৯৮৭ সালে প্রণীত ‘বাংলা ভাষা প্রচলন আইন’-এর তৃতীয় ধারায় বলা হয়েছে ‘এই আইন প্রবর্তনের পর বাংলাদেশের সর্বত্র তথা সরকারি অফিস, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান কর্তৃৃক বিদেশের সঙ্গে যোগাযোগ ব্যতীত অন্য সকল ক্ষেত্রে নথি ও চিঠিপত্র, আইন আদালতের সওয়াল জবাব এবং অন্যান্য আইনগত কার্যাবলি অবশ্যই বাঙলায় লিখিতে হইবে।’ ওই আইনের ২(১) উপধারায় বলা হয়েছে কর্মস্থলে যদি কোনো ব্যক্তি বাংলা ভাষা ব্যতীত অন্য কোনো ভাষায় আবেদন বা আপিল করেন, তাহলে তা বেআইনি ও অকার্যকর বলে গণ্য হবে। বাংলা ভাষা ব্যবহার না করলে শাস্তি প্রদানের কথাও বলা হয়েছে। বাস্তবতা হচ্ছে, সে আইন এখনো বলবৎ আছে, তবে কোনো সঠিক প্রয়োগ নেই; বরং সর্বত্র ঘটছে উল্টো প্রয়াসÑ বাংলা ভাষাকে নির্বাসনে পাঠানোর প্রচেষ্টা। আইনে বাংলা ব্যতীত অন্য ভাষা বলতে ইংরেজিকে ইঙ্গিত করা হলেও ইংরেজি ব্যবহারে শাস্তির পরিবর্তে পুরস্কৃত করা হচ্ছে। সমস্যা দেখা দিয়েছে এক্ষেত্রে আরও একটা। ইংরেজি ভাষায় ভালো দখল না থাকার ফলে ভুল ইংরেজির মহোৎসবও অনুষ্ঠিত হচ্ছে বাংলা ভাষার অবমাননার কালখন্ডে।
সম্মানিত পাঠক, সরকারি নানা মন্ত্রণালয়, অধিদপ্তর, দপ্তরে ব্যবহৃত বাংলা লেখা দেখে আপনার-আমার চোখ ‘ছানাবড়া’ হলেও ওই সংস্থার কর্তাদের চোখে মোটেও পড়ে না। যেমন- ‘জরুরী বিদ্যুৎ সরবরাহ’, ‘জরুরী ওষুধ সরবরাহ’, ‘জরুরী রপ্তানি কাজে নিয়োজিত’ ইত্যাদি। ভাবটা এমন যে, ‘ঈ-কার’ ব্যবহারপূর্বক সরকারী, জরুরী, কোম্পানী, রপ্তানী, ফার্মেসী, তৈরী, বেশী, কাশী, গরীব, চাকুরী, পদবী ইত্যাদি লিখলে তা যেন শক্তিশালী হয়। সরকারি অফিসের দাপ্তরিক ভাষা বাংলা প্রচলিত থাকলেও দপ্তরগুলোর নথিপত্রে ভাষার যে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্যের ছড়াছড়ি তা অনুভব করে ‘কবর’-এ শায়িত রফিক, জব্বার, সালাম, বরকত, শফিউর নিশ্চিত তরপাচ্ছে- এটা হলফ করে বলাই যায়।
যা বলছিলাম, জাতিক-আন্তর্জাতিক দুষ্টচক্রের খপ্পরে পড়ে বাংলাদেশে আজ বাংলা ভাষার অবস্থা খুবই শোচনীয়। আমাদের দেশে বাংলা ভাষা নিয়ে এখন চলছে চরম নৈরাজ্য। দেখে মনে হয় যে, এ বিষয়ে কারও যেন কোনো দায়িত্ব নেই। প্রযুক্তির মন্দ প্রভাবে প্রচুর বই প্রকাশিত হচ্ছে, বের হচ্ছে অনেক সংবাদপত্র। কিন্তু কোথাও একক কোনো নিয়মনীতি পালন করা হয় বলে মনে হয় না। বাংলা একাডেমির বইয়ে উপেক্ষিত হয় তাদের নিজেদের তৈরি ‘প্রমিত বানান রীতি’, স্কুল টেকস্ট বুক বোর্ডের বইয়ে নির্দিষ্ট কোনো শব্দের নানা ধরনের বানান দেখা যায় বিভিন্ন শ্রেণির পাঠগ্রন্থে, কখনো-বা একই বইয়ে। কর্পোরেট পুঁজি-নিয়ন্ত্রিত সংবাদপত্রসমূহে বাংলা ভাষার নানামাত্রিক ব্যবহার সৃষ্টি করছে বহুমুখী বিভ্রান্তি, বানান-রীতিতে মানা হচ্ছে না ব্যাকরণের নিয়মরীতি, বাংলা-ইংরেজি মিশিয়ে রেডিও-টেলিভিশনে প্রচারিত হচ্ছে উদ্ভট জগাখিচুড়ি ভাষার অনুষ্ঠান। পত্রিকায় এমন বানান-রীতি অনুসৃত হচ্ছে দেখেই বুঝা যায়- এটা তাদের নিজস্ব দৃষ্টিভঙ্গি, সামসময়িক-সর্বজনীন নয়। ব্যক্তির পক্ষে ধর্মান্তরিত হওয়া যতটা সহজ, ভাষান্তরিত হওয়া ততটাই কঠিন। তাই রাষ্ট্রভাষাকে অবজ্ঞা করার এ প্রবণতা বিনাসে এবং বাংলাকে বিশ্বদরবারে সুপ্রতিষ্ঠিত করতে কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে- রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ তথা চলমান ইতিহাসের ধারক পত্র-পত্রিকা, সাময়িকী ও অনলাইন মিডিয়াকেই। তাদেরকে সর্বোচ্চ সচেতন হতে হবে ভাষা প্রয়োগ ও বানান ব্যবহারে। তবেই শান্তি পাবে রফিক, জব্বার, সালাম, বরকত, শফিউর সহ অন্যরা- স্বার্থক হবে তাদের আত্মত্যাগ।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া