নিখোঁজ মিরার সন্ধান চেয়ে মায়ের সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত : ১০ জানুয়ারী, ২০২২

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরের ফলদা হিন্দুপাড়ায় কিস্তি আদায়ের জন্য যাবার সময় পথ থেকে নিখোঁজ হোন মিরা খাতুন। গত ২০ নভেম্বর ২০২১ তারিখে নিখোঁজ হন তিনি। নিখোঁজের দিন ভূঞাপুর থানায় সাধারণ ডায়েরী করলেও এখনো তার কোন তথ্য দিতে পারিনি পুলিশ। এদিকে দীর্ঘ দেড় মাস পার হলেও পুলিশ মেয়ের সন্ধান করতে না পারায় হতাশায় ভুগছে মিরার পরিবার।
সোমবার (১০ জানুয়ারি) সকাল ১১ টায় মেয়ের সন্ধান পেতে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবের বঙ্গবন্ধু মিলাতয়নে সংবাদ সম্মেলন করে মিরা খাতুনের পরিবার ।


সংবাদ সম্মেলনে মিরা খাতুনের মা হুসনেয়ারা বেগম বলেন, প্রতিদিনের ন্যায় আমার মেয়ে তার কর্মরত অফিস ভূঞাপুরের ফলদা শাখা থেকে কিস্তি উত্তোলনের জন্য বের হয়। পরে সে মাইজবাড়ি,ঝনঝনিয়া হইতে কিস্তি আদায় করে। পরে সে আবার চন্ডিপুর ও হিন্দুপাড়া কিস্তি আদায় করার জন্য যাবার সময় নিখোঁজ হয়। তার পরে যখন অফিস সময় পার হয়ে যাবার পরেও অফিসে আসে না তখন তার অফিসের অন্য কর্মরতরা তার মোবাইল ফোনে বারবার চেষ্টা করাসহ আশেপাশে খোঁজ করলে তাকে পাওয়া যায়নি ।


পরে ওই দিন রাত অনুমানিক ৯ টার দিকে ভূঞাপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী (ডায়েরী নাম্বার ৮২১) করেন এসএসএস ফলদা শাখার ম্যানেজার বন্যা আক্তার। পরে দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হলেও এখনো মিরার খোঁজ পাওয়া যায়নি। পুলিশকে সন্দেহ ভাজন কয়েকজনের নাম বললেও তাদের বিরুদ্ধে কোন প্রকার ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।


যেদিন থেকে আমার মেয়ে নিখোঁজ সে দিন থেকে এলাকার বেশ কিছু লোক নিখোঁজ রয়েছে অথচ পুলিশ তাদের বিরুদ্ধেও কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। প্রশাসনের কাছে দাবী, আমার মেয়েকে কেউ হত্যা করেছে নাকি গুম করেছে সে বিষয়ে জানতে চাই। আমার মেয়ের দুইজন ছেলে সন্তান রয়েছে। বড় ছেলে মিরাজ চতুর্থ শ্যেণীর ছাত্র আর ছোট ছেলে মুকিত তৃতীয় শ্রণীর ছাত্র। এই ছোট ছোট বাচ্চাদের মানুষ করার জন্য আমার মেয়েকে ফিরে পাওয়াটা খুবই জরুরী।


এসময় উপস্থিত ছিলেন মিরা খাতুনের স্বামী রাজিব মিয়া,বড় ছেলে মিরাজ,ছোট ছেলে মুকিতসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

তারিখ অনুযায়ী সংবাদ পড়ুন

জানুয়ারী 2022
রবি সোম বুধ বৃহ. শু. শনি
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031  
এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ। কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে নিন।