চাঁদপুরে ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ

প্রকাশিত : ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

চাঁদপুর সংবাদদাতাঃ

চাঁদপুর শহরের রয়েল হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার রাত নয়টার দিকে শহরের চিত্রলেখা মোড়ের রয়েল হাসপাতালে (প্রা:) ঘটনাটি ঘটেছে। এ ঘটনায় চাঁদপুর মডেল থানায় একটি মামলা হয়েছে।

জানা গেছে, চাঁদপুর সদর উপজেলার উত্তর বালিয়া এলাকার শরিফুল ইসলাম খানের স্ত্রী রেশমা বেগমের প্রসব ব্যথা উঠলে তাকে প্রথমে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়। এ সময় হাসপাতালের সামনে থাকা বিসমিল্লাহ ফার্মেসির মালিক হাফেজ গোলদার জানায়, শুক্রবার সদর হাসপাতালে কোনো ডাক্তার নাই, রোগীকে সিজার করানো যাবে না। তাকে প্রাইভেট ক্লিনিকে নিয়ে যেতে হবে। রোগীর স্বজনরা সিজার করানোর জন্য রয়েল হাসপাতালে না নিয়ে অন্য হাসপাতালে নেওয়ার জন্য হাফেজ গোলদারকে অনুরোধ করে। কিন্তু দালাল গোলদার অনেকটা জোরপূর্বক তাদেরকে রয়েল হাসপাতালে এনে ভর্তি করায়।

রাত নয়টার দিকে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের গাইনি চিকিৎসক ডা. ফাতেমা বেগম রোগীকে অপারেশন শেষ করেন। বাচ্চা প্রসব হলেও রোগী অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকেন। অপারেশন শেষে ডা. ফাতেমা হাসপাতাল থেকে চলে যান। রোগীর মৃত্যুর পর হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার, নার্সসহ অন্যান্য কর্তৃপক্ষ এক এক করে পালিয়ে যায়। জ্ঞান না ফিরলে রোগীর স্বজনরা দিশেহারা হয়ে পরে। এ সময় তারা হাসপাতালের ডাক্তার, নার্স কাউকে খুঁজে পায়নি। পরবর্তীতে তারা জানতে পারে রোগী রেশমা মারা গেছেন।

খবর পেয়ে চাঁদপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) মাহাবুব মোল্লা সঙ্গিয় ফোর্স নিয়ে হাসপাতালে ছুটে যান। এ সময় রোগীর স্বজনরা হাসপাতাল ভাঙচুরের চেষ্টা করলে পুলিশ ও এলাকাবাসী তাদের বাধা দেয়। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য নিয়ে যায় পুলিশ।

জানতে চাইলে ডা. ফাতেমা বেগম জানান, ‘আমি অপারেশন করে রোগীর বাচ্চা প্রসব হওয়ার পর চলে আসি। আমার সাথে এনেসথেসিয়া ডা. ইলিয়াছও ছিল। পরবর্তীতে শুনছি রোগী মারা গেছেন। রোগী আমার ভুলের কারণে মারা যায়নি। রোগীর জ্ঞান না ফেরার বিষয়টি সম্পূর্ণ এনেসথেসিয়া ডাক্তারের বিষয়। তাছাড়া হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বিষয়টি ভালো বলতে পারবেন।’

এদিকে রোগীর স্বজনরা হাসপাতালের সামনে অবস্থিত বিসমিল্লাহ ফার্মেসির মালিক হাফেজ গোলদারের কাছে গেলে তার দোকান বন্ধ দেখতে পায়।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া