টাকায় মেলে বন উজাড়!

প্রকাশিত : ১৮ জানুয়ারী, ২০২১

মির্জাপুর ও সখীপুর বনাঞ্চল
৪ পর্বের ধারাবাহিক প্রতিবেদনের প্রথম পর্ব

টাকায় নাকি বাঘের দুধও মিলে। বাঘের দুধ নয়, তবে ভূমি বেদখল ও বনের গাছ উজাড় সহ অবৈধ করাতকল পরিচালনা ঠিকই মেলে এ বনে। আর এ কান্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ খোদ বন কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে।

স্থানীয় প্রভাবশালী ও বন বিভাগের কিছু অসাধু কর্মকর্তার সঙ্গে আঁতাত করে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতা, জনপ্রতিনিধি ও উপজাতি নেতারা ভূমি দখল করছে। এতে বনাঞ্চলের বিপুল পরিমাণ জায়গা বেদখল হচ্ছে। বনবিভাগের এক জরিপ থেকে জানা যায়, টাঙ্গাইলের বনভূমির পরিমাণ এক লাখ ১৮ হাজার ৪০৪ দশমিক ৮৪ একর। এর মধ্যে চারটি উপজেলার আটটি রেঞ্জের ৩১টি বিটে ১৫৭ মৌজায় ৪১ হাজার ২৬১ দশমিক ৬৫ একর ভূমি দখল হয়ে গেছে। দখলদার রয়েছেন ২৮ হাজার ৬৫০ জন। মির্জাপুর ও সখীপুর উপজেলার বাঁশতৈল রেঞ্জের ৬টি বিটের ৩১ মৌজায় ১৪ হাজার ৩৭৪ দশমিক ৬ একর বনভূমির মধ্যে ৪ হাজার ৮৬৪ জন ৬ হাজার ৬২৫ দশমিক ৯১ একর ভূমি বেদখল, সখীপুর উপজেলার বহেড়াতলী রেঞ্জের ৫টি বিটের ৩৫ মৌজায় ২০ হাজার ৮৭৮ দশমিক ৭৬ একর বনভূমির মধ্যে ৩ হাজার ৫৯৬ জন ৩ হাজার ৬৪১ দশমিক ২ একর ভূমি বেদখল, সখীপুর উপজেলার হতেয়া রেঞ্জের ৫টি বিটের ১৭ মৌজায় ১৪ হাজার ৮৬৮ দশমিক ৯৯ একর বন ভূমির মধ্যে ৬ হাজার ৩৬১ জন ৭ হাজার ২৪৪ দশমিক ১৯ একর ভূমি বেদখল, ঘাটাইল উপজেলার ধলাপাড়া রেঞ্জের ৫টি বিটের ৫২ মৌজায় ২৫ হাজার ৭৮৫ দশমিক ২৩ একর বন ভূমির মধ্যে ৫ হাজার ৪২১ জন ১ হাজার ৯০০ দশমিক ৮ একর ভূমি বেদখল এবং মধুপুর উপজেলার চারটি রেঞ্জের ১০টি বিটের ২৩ টি মৌজায় ৪২ হাজার ৪৯৭ দশমিক ৮০ একর বন ভূমির মধ্যে ৮ হাজার ৪১৭ জন ২১ হাজার ৮৫০ দশমিক ৪৫ একর ভূমি বেদখল হয়েছে।
স্থানীয়রা জানান, প্রভাবশালীদের নামে-বেনামে বনভূমি দখল হয়েছে বেশি। সামাজিক বনায়নের নামেও অনেক জায়গা দখল হয়েছে।

সরেজমিন দেখা যায়, সখীপুর উপজেলার সরাতৈল গ্রামে বনের জায়গা দখল করে নতুন নতুন ঘরবাড়ি নির্মাণ হচ্ছে। শত শত টিনের ঘর আর দালানে ভরে গেছে পুরো বন। দেখলে মনে হয় এ যেন নতুন একটি গ্রাম। আবদুল লতিফ, সমীর সিকদার, আবদুল কাদের মোল্লা, জুলহাস মিয়া, আবদুল জয়নাল মিয়াসহ অনেকেই বনের জায়গা দখল করে বাড়ি করেছেন।

সংবাদ চলমান…।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া