টাঙ্গাইলের স্কুল ছাত্রী অপহরণ ও ধর্ষণ মামলার আসামী গ্রেপ্তার

প্রকাশিত : ১৮ নভেম্বর, ২০২১

টাঙ্গাইলের ৭ম শ্রেণীর ছাত্রী অপহরণ ও ধর্ষণ মামলার আসামী গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। গ্রেফতারকৃত মো. রিশাদ মিয়া (৩০)সখীপুর উপজেলার দাড়িয়াপুর গ্রামের মো. মফিজ মিয়ার ছেলে। এরআগে টাঙ্গাইল পৌর শহরের পুরাতন বাসস্ট্যান্ড এলাকার একটি বসত বাড়ি থেকে হাত, পা, মুখ বাধা ও অসুস্থ অবস্থায় অপহৃত ছাত্রীকে উদ্ধার করে র‌্যাব সদস্যরা।

বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) দুপুরে র‌্যাব কার্যালয়ে প্রেসব্রিফিংয়ে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন টাঙ্গাইল র‌্যাব-১২সিপিসি-৩ এর কোম্পানী কমান্ডার লে. কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল মামুন।

প্রেসব্রিফিংয়ে তিনি জানান, গত ১৪ নভেম্বর সন্ধ্যায় একদল সন্ত্রাসী নিয়ে অস্ত্রের মুখে ভয় দেখিয়ে টাঙ্গাইল জেলার সদর থানাধীন বড় বেলতা (অলোয়া চর) ৭ম শ্রেণীতে পড়ুয়া ওই কিশোরীকে অপহরণ করে ভিকটিমের মা টাঙ্গাইল জেলার সদর থানা ও র‌্যাব অফিসে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগ প্রাপ্তির পর ভিকটিম উদ্ধার ও অপহরণকারীদের গ্রেফতারের জন্য র‌্যাব-১২, সিপিসি-৩, টাঙ্গাইলের গোয়েন্দা টিমের তৎপরতা ও বিভিন্ন জায়গায় অনুসন্ধান কার্যক্রম শুরু করা হয়। গোয়েন্দা তৎপরতা, অনুসন্ধান ও আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহারে ভিকটিম ও অপহরণকারীরা টাঙ্গাইল জেলার সখীপুর থানায় অবস্থান করছে। তবে অপহরণকারীরা বার বার ভিকটিমকে নিয়ে স্থান পরিবর্তন করার কারণে গতকাল বুধবার (১৭ নভেম্বর) সন্ধ্যায় টাঙ্গাইল সদর থানা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে একটি ঘরের ভিতরে ভিকটিমকে হাত, পা, মুখ বাধা ও অসুস্থ্য অবস্থায় উদ্ধার করতে সক্ষম হন র‌্যাব সদস্যরা। পরবর্তীতে বৃহস্পতিবার (১৮ নভেম্বর) দিবাগত রাতে পালিয়ে যাওয়ার সময় সিরাজগঞ্জের হাটিকুমরুল এলাকা হতে অপহরণ ও ধর্ষণের মুল হোতা মোঃ রিশাদ মিয়া কে গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় জড়িত অন্যান্য আসামীদের আটক করার বিষয়টিও প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।


তিনি জানান, ভিকটিমকে উদ্ধারের পর হাসপাতালে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়াসহ পরিবারের সাথে টাঙ্গাইল সদর থানায় এ বিষয়ে মামলা দায়ের ও মেডিকেল পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়। ধর্ষক রিশাদ মিয়া একজন ট্রাক্টর চালক। এর আগেও তিনি দুটি বিয়ে করেছে। এ ঘটনায় ভিকটিমের বড় ভাই বাদি হয়ে সদর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০(সংশোধণী/০৩) এর ৭/৯(১)/৩০ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন।


বৃহস্পতিবার দুপুরে আসামীকে টাঙ্গাইল থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। অন্যান্য আসামীদের আটক করার বিষয় প্রক্রিয়াধীন বলে র‌্যাব কমান্ডার জানান।


র‌্যাব কমান্ডার আরও জানান, জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত রিশাদ মিয়াসহ তার আরও ৩/৪জন বন্ধুর সহযোগিতায় সদর উপজেলার বড় বেলতা(অলোয়া চর) গ্রামের ওই ছাত্রীকে অস্ত্রের মুখে ভয় দেখিয়ে ও মুখে কসটেপ লাগিয়ে অপহরণ করেছে বলে স্বীকার করেছে। অপহরণের পর সিএনজি যোগে ওই ছাত্রীকে সখীপুরের দূর্গম নির্জন পাহাড়ী এলাকায় তার এক পরিত্যক্ত ঘরে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে অস্ত্রের মুখে ভয় দেখিয়ে ও ইচ্ছার বিরুদ্ধে ওই ছাত্রীকে একাধিক বার ধর্ষণ করেছে। এছাড়াও অপহৃতা ছাত্রী যেন পালাতে না পারে সে জন্য তার হাত ও পা বেধে দরজা বন্ধ করে আটকে রাখে। এরপরও আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিতে অপহৃত ওই ছাত্রীকে নিয়ে তারা বার বার সখীপুর, মধুপুর ও সদরের বিভিন্ন জায়গায় অবস্থান পরিবর্তন করে। অবস্থান পরিবর্তনের সময়ও তারা ছাত্রীর চোখ ও মুখ গামছা দিয়ে বেধে রাখতো।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ। কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে নিন।