টাঙ্গাইলে ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত : ১৪ জানুয়ারী, ২০২২

টাঙ্গাইলে অনুষ্ঠিত হয়েছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী লাঠিবারি খেলা। শুক্রবার (১৪ জানুয়ারি) বিকালে সদর উপজেলার বার্থা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠ প্রাঙ্গণে এ খেলা অনুষ্ঠিত হয়।

বাদ্যের তালে তালে নেচে নেচে লাঠিবারি খেলে অঙ্গভঙ্গি প্রদর্শন করে লাঠিয়ালরা। খেলোয়াড়রা একে অপরের সঙ্গে লাঠি যুদ্ধে লিপ্ত হয়। লাঠি দিয়ে অন্যের আক্রমণ ঠেকাতে থাকেন। আর এরই মধ্যে নিজের চেয়ে বড় লাঠি নিয়ে অদ্ভুত সব কসরত দেখিয়ে উপস্থিত সবাইকে তাক লাগিয়ে দেন লাঠিয়ালরা। আর লাঠিয়াল দলের ক্ষুদে এক লাঠিয়ালের কসরত দেখে অবির্ভূত হন প্রবীণ লাঠিয়াল। দল বেধে আগত দর্শকদের সালাম বিনিময় করেন।

এসব দৃশ্য দেখে আগত দর্শকরাও করতালির মাধ্যমে খেলোয়াড়দের উৎসাহ দেন।

কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাওয়া এ লাঠি খেলা দেখতে মাঠ প্রাঙ্গণে হাজির হন নানা বয়সের মানুষ। ইট-পাথরের টুংটাং আওয়াজকে হার মানিয়ে কিছুটা হলেও পুরানো দিনের গ্রামীন চিত্ত বিনোদনের সুযোগ পান বয়ো-বৃদ্ধরা।

লাঠিয়ালরা বলেন, আনন্দ ও বিনোদন জোগাতে আমরা লাঠি খেলা দেখাই। এ খেলা আমাদের পূর্ব-পুরুষের। আমরাও আমাদের সন্তানদের এ খেলা শিখিয়েছি। যাতে তারাও এ খেলা দেখিয়ে মানুষকে আনন্দ দিতে পারে। তবে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা পেলে গ্রামীণ ঐহিত্যবাহী এ খেলাটি টিকে থাকবে, না হলে হরিয়ে যাবে।  

দর্শনার্থী ফিরোজ, রেজাউল, আক্কাস, জয়নাল সহ আরও অনেকে জানান, মাঠের স্বল্পতা আর ভিডিও গেমসের কারণে আমাদের শিশুরা ঘরমুখো। প্রথমবারের মত আমরা গ্রামিন এ খেলা দেখলাম।

২ নং গালা ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান মো. রকিবুর রহমান খান তন্ময় বলেন, লাঠিবারি খেলা গ্রামীণ ঐতিহ্যের একটি অংশ। গ্রামবাসীদের আনন্দ দিতে এ খেলার আয়োজন করা হয়েছে। তাদের চিত্ত বিনোদন দিতে ও ঐতিহ্যবাহী খেলাটি টিকিয়ে রাখতেই এ আয়োজন করা হয়।

বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. জামাল হোসেন খান এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ২ নং গালা ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মো. নজরুল ইসলাম খান, সমাজ সেবক মো. সোহরাব উদ্দিন তালুকদার প্রমুখ।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

তারিখ অনুযায়ী সংবাদ পড়ুন

জানুয়ারী 2022
রবি সোম বুধ বৃহ. শু. শনি
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031  
এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ। কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে নিন।