টাঙ্গাইলে মিটার চুরি করে মুক্তিপণ!

প্রকাশিত : ১ সেপ্টেম্বর, ২০২১

মির্জাপুর ১ সেপ্টেম্বর ২০২১ : ‘মানুষ জি’ম্মি করে মুক্তিপণ আদায়ের ঘটনা প্রায়ই শোনা যায়’। ‘কিন্তু এবার বৈদ্যুতিক শিল্প মিটার চুরির পর ‘মুক্তিপণ’ আদায় করার মতো ব্যতিক্রম ঘটনা ঘটেছে টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে। সাম্প্রতিক সময়ে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে মিটার চুরির পর সেগুলো ফেরত দিতে মুক্তিপণ আদায়ের একাধিক ঘটনা ঘটেছে বলে ভুক্তভোগী সূত্রে জানা গেছে’।


‘শনিবার ভোরে শিল্প এলাকা হিসেবে পরিচিত উপজেলার গোড়াই ইউনিয়নের নাজিরপাড়া ও সোহাগপাড়া এলাকায় ওই মিটার চুরির ঘটনা ঘটে।’ মিটার চুরির পর সেগুলো ফেরত দিতে মুক্তিপণ হিসেবে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে বেশকিছু টাকাও আদায় করেছে চোর চক্রটি।’ তবে ঘটনার চতুর্থদিনেও চোর শনাক্ত করে আইনের আওতায় আনতে পারেনি পুলিশ’।


‘মঙ্গলবার ভুক্তভোগী নজরুল ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপের স্বত্বাধিকারী মাহবুব হোসেন জানান, গত শনিবার ভোর ৬টার দিকে ওয়ার্কশপের কর্মীরা তাকে মিটার চুরি যাওয়ার ঘটনাটি অবগত করে।’ মিটারবঙে চোর তার মোবাইল নাম্বারও দিয়ে যায়।’ এরপর চোরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাকে ১৫ হাজার টাকা দিলে মিটার ফেরত দিবে বলে জানায়’।


‘একই এলাকায় নয়ন ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপের স্বত্বাধিকারী নয়ন মিয়া বলেন, মিটার চুরি যাওয়ায় আমরা ব্যবসায়িকভাবে মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছি। ইতিমধ্যে মুক্তিপণ হিসেবে চোরের মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাকাউন্টে চুরি যাওয়া দুইটি মিটার বাবদ ১১ হাজার টাকা পাঠিয়েছি।’ কিন্তু আরও ৫ হাজার টাকা না দিলে মিটার দিবে না বলে ওই চোর জানিয়েছে।’

‘সোহাগপাড়া এলাকার শওকত খান বলেন, শনিবার তার মার্কেটের দুটি শিল্প মিটার চুরি হয়েছে।’ চোরের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে সে টাকা দাবি করেছে।’ আমি তাকে টাকা না দিয়ে পল্লী বিদ্যুতের মাধ্যমে মিটার প্রতিস্থাপনের চেষ্টা করছি। ব্যক্তিগত ভাবেও চোর শনাক্তের চেষ্টা করছি। ‘একই রাতে তাদের এলাকা থেকে আরও ১৭টি মিটার চুরির ঘটনা ঘটেছে বলে তিনি দাবি করেন।’


‘মির্জাপুর পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মো. জাকির হোসেন বলেন, মিটার চুরির ঘটনা শুনেছি।’ বিষয়টি নিয়ে আমরা থানা পুলিশের সঙ্গে কথা বলেছি।’ ভুক্তভোগীরা থানায় জিডি করে মিটারের জন্য আবেদন করলে মিটার প্রতিস্থাপন ব্যয়ে ৫০ শতাংশ ছাড় দেয়ার সুযোগ রয়েছে।’


‘দেওহাটা ফাঁড়ির ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক মো. আইয়ুব আলী বলেন, আমরা ৪টি মিটার চুরির অভিযোগ পেয়েছি।’ ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে পাওয়া চোরের মোবাইল নাম্বার ট্রাকিংয়ে দেয়া হয়েছে।’ আমরা তাকে শনাক্ত ও আইনের আওতায় আনার চেষ্টা করছি।’

সূত্র: মানবজমিন

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ। কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে নিন।