ফরেস্টার সোলায়মানের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ

প্রকাশিত : ২ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

টাঙ্গাইল সদর উপজেলার রসুলপুর বিট কার্যালয়ের ফরেস্টার মো. সোলায়মান হোসেনের বিরুদ্ধে টহলের নামে সপ্তাহে লাখ লাখ টাকা চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ রয়েছে, সোলায়মান রসুলপুর বিট এলাকার হলেও পার্শ্ববর্তী কালিহাতীর এলেঙ্গা রাজাবাড়ী মোড়ে অবস্থান নিয়ে মামলার ভয় দেখিয়ে কাঠবাহী ট্রাক চালকদের কাছ থেকে ৫০০ থেকে এক হাজার টাকা করে চাঁদা তুলছেন। এতে দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠেছে সোলায়মান। এই চাঁদাবাজি বন্ধের দাবি জানিয়েছেন, গাছবাহী ট্রাক চালকেরা।


জানা যায়, টাঙ্গাইলের মধুপুর, ধনবাড়ী, ঘাটাইল থেকে কাঠবাহী এলেঙ্গা-ময়মনসিংহ সড়কের রাজাবাড়ী মোড় এলাকায় হয়ে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে চলাচল করে। আর এই সুযোগে দীর্ঘদিন যাবত ফরেস্টার সোলায়মান হোসেন বন প্রহরী মো. মোখলেছুর রহমান ও মো. আব্দুল কাদেরকে সাথে নিয়ে ঢাকা-টাঙ্গাই-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের এলেঙ্গা লিংক রোডে সন্ধ্যার পর অবস্থান নেয়। সোলায়মান বন বিভাগের গাড়িতে বসে থাকেন। বন প্রহরীরা রাজাবাড়ী মোড় এলাকায় কাঠবাহী ট্রাক থামিয়ে চালকদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে সোলায়মানে কাছে জমা দেয়। এরপর গাড়ি ও কাঠের কাগজ পত্র যাচাইয়ের নামে মামলার ভয় দেখানো হয়। প্রত্যেক ট্রাক থেকে ৫০০ থেকে ১০০০ টাকা নিয়ে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়।


স্থানীয় ব্যবসায়ীরা জানান, প্রত্যেকদিন সন্ধ্যার পর থেকে রাত প্রায় ১ টা পর্যন্ত ৭০ থেকে ১০০ টির মতো গাড়ি তারা থামায়। তাদের কাঙ্খিত টাকা পাওয়ার পর তাদের ছেড়ে দেয়া হয়। মাঝে মাঝে ট্রাক চালক ও প্রহরীর সাথে তর্কবিতর্ক হয়। রাতে আকাশে আমাবস্যার কারণে চাঁদ না উঠলেও তাদের চাঁদাবাজি কোন কারণেই বন্ধ থাকে না।


রোববার (৩০ জানুয়ারি) রাত সাড়ে ৯ টায় সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, রাজাবাড়ি মোড়ে সোলায়মান হোসেন বন বিভাগের গাড়ির (টাঙ্গাইল ঘ- ০২-০১০২) সামনের সিটে বসে রয়েছেন। কাঠবাহী গাড়ি থামানোর কাজে ব্যস্ত রয়েছে প্রহরী মো. মোখলেছুর রহমান ও মো. আব্দুল কাদের। ৯ টা ৩৫ মিনিটে মির্জাপুরগামী কাঠবাহী একটি ট্রাক দাঁড় করালেন প্রহরীরা। এক মিনিটের মতো কথা বলার পর ট্রাক চালকে হাত থেকে কিছু একটা নিয়ে তাকে ছেড়ে দিলেন। জানতে চাইলে ট্রাক চালক লেবু মিয়া বলেন, আমি মধুপুর থেকে গাছে গুড়ি নিয়ে মির্জাপুর ভাটায় যাচ্ছি। এলেঙ্গা মোড়ে আসার পর বন বিভাগের পরিচয়ে কাগজ চাইলেন। এরপর তারা এক হাজার টাকা দাবি করে। ৫০০ টাকা দেওয়ার পর আমাকে ছেয়ে দেয়। এর আগেও পাঁচবার তাদের টাকা দিয়েছি।


সিরাজগঞ্জগামী ট্রাক চালক লুৎফর রহমান বলেন, ঘাটাইল থেকে গাড়িতে গাছের গুড়ি নিয়ে সিরাজগঞ্জ যাচ্ছি। ঘাটাইল থেকে এলেঙ্গা পর্যন্ত আসতে পুলিশকে টাকা না দিলেও বন বিভাগকে ৫০০ টাকা দিতে হয়েছে।


রাত পৌনে ১০ টার দিকে চুয়াডাঙ্গাগামী একটি ট্রাক (ঢাকা মেট্রো ট- ২৪-৫৯২৫) থামায়। সেই ট্রাকের চালক লিটনের কাছ থেকেও এক হাজার টাকা নেয় তারা। লিটন বলেন, রাজাবাড়ী মোড় থেকে গাছবাহী ট্রাক থেকে টাকা নেওয়া বন বিভাগের ওপেন সিক্রেট। কার কাছে অভিযোগ করলে চাঁদাবাজি বন্ধ হবে তাও জানি না।


ওই দিনই রাত ১০ টার দিকে আরও দুই ট্রাক থামায় তারা। সাংবাদিকের উপস্থিতির টের পেয়ে বন প্রহরী মো. মোখলেছুর রহমান ও মো. আব্দুল কাদের ট্রাকের সামনে থেকে দৌড়ে পালিয়ে যায়। এই সুযোগে কাঠবাহী দুই ট্রাক চলে যায়।


গাড়িতে বসে থাকা সোলায়মান হোসেন বলেন, টহল কাজে এখানে অবস্থান করছি। রসুলপুর বিট কার্যালয়ের অফিসার হয়ে কিভাবে কালিহাতী এলাকায় আসলেন বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি কোন উত্তর দিতে পারেননি।


টাঙ্গাইল বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা ড. মোহাম্মদ জহিরুল হক বলেন, সে কাঠ বা গাছের কাগজপত্র যাচাই বাছাই করতে পারে। তবে টাকা নিতে পারেন না। সোলায়মানের টাকা নেওয়ার বিষয়টি জানা ছিলো না। খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হে

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

তারিখ অনুযায়ী সংবাদ পড়ুন

মে 2022
রবি সোম বুধ বৃহ. শু. শনি
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031  
এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ। কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে নিন।