ফেমাস টেলিকমের আড়ালে অবৈধ বৈদেশিক মুদ্রা ও হুন্ডি ব্যবসা

প্রকাশিত : ১০ মার্চ, ২০২২

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলায় ফেমাস টেলিকম ওরফে ভিভো শো রুমের আড়ালে অবৈধভাবে চলছে বৈদেশিক মুদ্রা ও হুন্ডির রমরমা ব্যবসা। এলেঙ্গা বাসষ্ট্যান্ডের ফুটওভার ব্রীজের নিচে ভিভো শো রুম ওরফে ফরিদ টেলিকমের আড়ালে বেশ কয়েক বছর ধরে অবৈধ এ ব্যবসা চালিয়ে আসছে। ফরিদ টেলিকমের পরিচালক ফরিদকে সবাই হুন্ডি ফরিদ ওরফে ডলার ফরিদ নামেই চিনেন।

জানা যায়, প্রশাসনকে ফাঁকি দিয়ে এলেঙ্গা পৌর-শহরে ডজন খানেক ট্রাবেল এজেন্সী ও দোকানের অন্তরালে প্রতিদিন লক্ষ্য লক্ষ্য টাকার লেনদেন হচ্ছে বিনাবাধায়। সরকারের কঠোর নির্দেশ উপেক্ষা করে পুরো উপজেলায় অর্ধশত ছোট বড় বৈদেশিক মুদ্রা ও হুন্ডি ব্যবসায়ী এলাকাকে বৈদেশিক মুদ্রা ও হুন্ডির স্বর্গরাজ্যে পরিনত করেছে। বিদেশে কর্মরত প্রবাসীরা ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা পাঠানোর ঝামেলা মনে করে হুন্ডির মাধ্যমে টাকা পাঠানো হয়। বিদেশ যাবে অথবা বিদেশ থেকে নিয়ে আসা বৈদেশিক মুদ্রা বেচাকেনা হচ্ছে এসব অবৈধ ব্যবসায়ীদের কাছে এবং এতে সরকার হারাচ্ছে প্রচুর পরিমাণ রেমিটেন্স।


সূত্র জানায়, কালিহাতী উপজেলার এলেঙ্গা বাসষ্ট্যান্ডের ফুটওভার ব্রীজের নিচে ভিভো শো রুম ও ফেমাস টেলিকম’র পরিচাকল এলাকার শীর্ষ হুন্ডি ব্যবসায়ী ফরিদ আহমেদ ওরফে ডলার ফরিদ ফেমাস টেলিকম নামের প্রতিষ্ঠানের অন্তরালে তিনি দিনের পর দিন পুরো উপজেলা জুড়ে বৈদেশিক মুদ্রা ও হুন্ডি ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করে আসছে। তিনি প্রতি মাসে কয়েক কোটি টাকা লেনদেনের পাশাপাশি ডলার, দিনার, দেরহাম, রিয়াল, রিংগিত, ইউরো, পাউন্ড, রুপিসহ বিদেশী মুদ্রা ব্যবসা করে আচ্ছে। এতে করে সরকার প্রতিমাসে লক্ষ লক্ষ টাকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। কালিহাতীর ১৩টি ইউনিয়ন ও ২ টি পৌরসভায় অন্তত শতাধিক হুন্ডি ও ডলার ব্যবসায়ী রয়েছে। এ চক্রটি প্রশাসনকে ম্যানেজ করে নির্বিগ্নে এব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।


এলেঙ্গা বাসষ্ট্যান্ডের একজন ব্যবসায়ী জানান, হুন্ডি ও ডলার ব্যবসায়ী ফরিদ টেলিকম ব্যবসার আড়ালে ছোট ভাইকে দিয়ে হুন্ডি এবং ডলার ব্যবসা করে অল্পদিনে কোটি টাকার মালিক বনে গেছেন।

প্রতিমাসে মাসোয়ার দেওয়ার ফলে ডলার ফরিদ ও তার ভাইকে প্রশাসন আটক করছে না বলে নাম প্রকাশ না করা শর্তে স্থানীয় আইন প্রয়োগকারী একটি সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়।

এ প্রতিবেদনের প্রতিবেদক পরিচয় গোপন রেখে বৃহস্পতিবার (১০ মার্চ) দুপুর ২.৪৩ মিনিটে মুঠোফোনে ফেমাস টেলিকমের পরিচালক ফরিদের সাথে কথা হয়। তাকে বলা হয় সৈদির রিয়াল বিক্রি করা হবে। তিনি ২৩ টাকা ৭০ পয়সা হারে ১৭০০ রিয়াল কিনে নিবে। এজন্য সন্ধার আগে তার ভিভো শো রুমে যেতে বলা হয়।

এ বিষয়ে ফেমাস টেলিকমের পরিচালক ফরিদ মুঠোফোনে গণবিপ্লব-কে জানায়, তার এক মামা মানি এক্সচেঞ্জ ব্যবসা করেন ঢাকায়। তিনি বৈদেশিক মুদ্রা কিনে নিচ্ছেন এমন প্রমান দিয়ে প্রশ্ন করলে তিনি প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে তিনি স্বীকার করেন।

এ বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানায়, আপনার মাধ্যমে বিষয়টি অবগত হলাম। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

তারিখ অনুযায়ী সংবাদ পড়ুন

মে 2022
রবি সোম বুধ বৃহ. শু. শনি
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031  
এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ। কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে নিন।