মির্জাপুরে অবৈধ ১৬টি কয়লার চুল্লী ধ্বংস

প্রকাশিত : ১৭ আগস্ট, ২০২১

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে অবৈধভাবে গড়ে উঠা অবৈধ কয়লা তৈরির ১৬টি চুল্লী ধ্বংস করা হয়েছে। উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) জোবায়ের হোসেন অভিযান চালিয়ে এসব কয়লা তৈরির কারখানা গুড়িয়ে দেন। এছাড়া কয়লা তৈরির অপরাধে মালিক হারুন অর রশিদের কাছ থেকে ৫০ টাকা জরিমানা আদায় করেন। মঙ্গলবার (১৭ আগস্ট) দুপুরে উপজেলার বাঁশতৈল ইউনিয়নের বাঁশতৈল পূর্বপাড়া এলাকায় এ অভিযান চালানো হয়।


জানা গেছে, গত প্রায় দুই বছর ধরে ওই এলাকায় বন উজাড় করে কয়লা তৈরির ধুম চলছিলো। বন বিভাগের বাঁশতৈল রেঞ্জের সদর বিট এলাকায় বন সংলগ্ন বাঁশতৈল পূর্বপাড়া এলাকায় অবৈধ ১৬টি কয়লা তৈরির চুল্লী স্থাপন করা হয়।

এসব চুল্লীতে প্রতি মাসে প্রায় ২৬ হাজার মন কাঠ পুড়ানো হয়।

বাঁশতৈল গ্রামের বিল্লাল হোসেন, গায়রাবেলিত গ্রামের মজিবুর রহমান, কাহারতা গ্রামের হাবিবুর রহমান এবং হারুন অর রশিদ কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরি করে আসছিলেন। এর ফলে বনজ সম্পদ ধ্বংস, পরিবেশ বিপর্যয়সহ চুল্লীর ধোয়ায় আশপাশের গাছপালায় মৌসুমী ফল ও সবজি নষ্ট হচ্ছিল। এছাড়া শিশু-কিশোররা শ্বাস কষ্টসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছেন বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেন।

অভিযানকালে ১৬টি অবৈধ কয়লা তৈরির চুল্লী গুড়িয়ে দেওয়া হয়। এ সময় ওই স্থানে উপস্থিত চুল্লীর মালিক হারুন অর রশিদের কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।


জানা যায়, চলতি বছর ফেব্রুয়ারি মাসে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) জোবায়ের হোসেন ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান চালিয়ে চুল্লী ধ্বংস ও মালিককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন। পরবর্তীতে ওইসব চুল্লীতে কাঠ পুড়িয়ে কয়লা তৈরি করা হতো।


মির্জাপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক জুবায়ের হোসেন বলেন, পরিবেশ রক্ষা ও জনস্বার্থে এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ। কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে নিন।