রসুলপুরে দুই দিনব্যাপি ঐতিহ্যবাহী ‘জামাইমেলা’ সমাপ্ত

প্রকাশিত : ২৭ এপ্রিল, ২০১৬

ভ্রাম্যমান প্রতিনিধিঃ

13087578_1585968358386681_2017992796810622648_n

টাঙ্গাইলের রসুলপুরের দুই দিন ব্যাপি জামাই মেলা শেষ হয়েছে। উৎসবমুখর পরিবেশে রোববার ও সোমবার(২৪ ও ২৫ এপ্রিল) এ মেলা চলে। দীর্ঘ সময়ের পথচলায় মেলাটি এলাকার ঐতিহ্যে পরিণত হয়েছে।
জানাগেছে, প্রতিবছর ১১ ও ১২ বৈশাখ (সনাতন পঞ্জিকা অনুসারে) টাঙ্গাইলের সদর উপজেলার রসুলপুর বাছিরন নেছা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আয়োজন করা হয় এ মেলার। রসুলপুরসহ আশেপাশের অন্তত ৩০টি গ্রামের লাখো মানুষের সমাগম ঘটে এ মেলায়। অনেকেই বলেন, এই মেলাকে কেন্দ্র করে এলাকার সব মেয়ের বর শ্বশুরবাড়ি বেড়াতে আসেন, তারাই মেলার মূল আকর্ষণÑ এ কারণেই মেলাটি ‘জামাইমেলা’ হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে।
স্থানীয়রা জানায়, এই মেলার উৎপত্তি কবে সেটা কেউ জানে না। যুগ যুগ ধরে এই মেলা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। এ এলাকার মানুষের কাছে ঈদ আর পূজাপার্বণের থেকেও এই মেলা বেশি আকর্ষনের উৎসব। মেলাটি বৈশাখী মেলা হিসেবে ব্রিটিশ আমলে শুরু হলেও এখন এটি ‘জামাইমেলা’ হিসেবে পরিচিত। মেলাকে সামনে রেখে রসুলপুর ও আশেপাশের বিবাহিত মেয়েরা তাদের বরকে নিয়ে বাবার বাড়ি চলে আসেন। মেয়ের জামাইকে মেলা উপলে বরণ করে নেবার জন্য শাশুড়িরা বেশ আগে থেকেই নেন নানা প্রস্তুতি। মেলার দিন জামাইয়ের হাতে কিছু টাকা তুলে দেন শাশুড়িরা। আর সেই টাকার সাথে আরও টাকা যোগ করে জামাইরা মেলা থেকে চিড়া, মুড়ি, আকড়ি, মিষ্টি, জিলাপিসহ বিভিন্ন জিনিস কিনেন।
রসুলপুরের বাসিন্দা আবু আশরাফ বলেন, এক মাস থেকে এই মেলার প্রস্তুতি নেয়া হয়। লোকজন ছুটি নিয়ে মেলা দেখার জন্য আসেন। আগে বয়স্ক লোকজন এই মেলা উপভোগ করতো। এখন মধ্যবয়স্ক এবং ছাত্র-ছাত্রীরা এই মেলা বেশী উপভোগ করনে। মেলায় মিষ্টি জাতীয় জিনিস বেশী বিক্রি হয়।
জামাল হোসেন নামে রসুলপুরের এক জামাই বলেন, তিনি স্বাধীনতার আগে বিয়ে করেছেন। প্রতি বছরই মেলায় আসেন। শ্বশুর-শ্বাশুড়ি বেঁচে থাকতে তারা আগে থেকেই দাওয়াত দিতেন। এখন তারা বেঁচে নেই। শ্যালক-শ্যালকের বউ এখন দাওয়াত দেয়।
আসাসুজ্জামান আসাদ নামে আরেক জামাই বলেন, তিনি চট্টগ্রাম থেকে এই মেলা উপভোগ করার জন্য এসেছেন। মেলায় এসে তিনি খুব আনন্দিত।
মেলাকে সামনে রেখে ছোট ছেলেমেয়েদের জন্য আয়োজন করা হয় নানা বিনোদন ব্যবস্থার। মেলায় থাকে ছোট-বড় প্রচুর স্টল, বিভিন্ন ধরনের খেলনা, কসমেটিকস, খাবারের দোকান। ঐতিহ্যবাহী এই মেলায় ব্যবসা করতে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসেন ব্যবসায়ীরা।
মেলার আহ্বায়ক আতাউর রহমান বলেন, আমাদের মেলায় ১৫৬ জন সেচ্ছাসেবক কাজ করছে। প্রাচীণকাল থেকেই এই মেলা চলে আসছে। জামাইরা এই মেলা বেশি উপভোগ করেন।
পাবনা থেকে আসা মোহাম্মদ হুমায়ন নামে এক ব্যবসায়ী বলেন, আমি ৭ থেকে ৮ বছর ধরে এই মেলায় আসছি। অন্যান্য বছরগুলোতে প্রচুর পরিমাণে বিক্রি হয়েছে।
জামালপুর থেকে আসা ব্যবসায়ী শপন বলেন, আমি ১২ বছর ধরে এই মেলায় পন্য বিক্রি করা জন্য আসছি। আমি বিভিন্ন মেলায় যাই।
সিরাজগঞ্জ থেকে আসা ব্যবসায়ী আবু সাইদ বলেন, মেলায় সিরাজগঞ্জের ব্যবসায়ী বেশি। মেলায় বিভিন্ন জিনিস বিক্রি করে আমরা লাভবান হই। কমিটির লোকজন আমাদেরকে বিভিন্নভাবে সাহায্য-সহযোগিতা করে।
মেলায় বিভিন্ন ধরনের আসবাবপত্র এবং খাট রযেছে। এগুলো সাধারণ মানুষ কিনছেন। মেলা দুইদিন হলেও আসবাবপত্র এবং খাট-পালংক আরো কয়েকদিন বিক্রি করা হবে।

সাপ্তাহিক গণবিপ্লব
এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ। কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে নিন।