দেলদুয়ারে সম্ভাবনাময় সূর্যমূখী ফুলের চাষ

প্রকাশিত : ১ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

তেলের বিকল্প হিসেবে চাষ হচ্ছে সূর্যমূখী। এক সময় সূর্যমূখীর চাষ করা হতো সৌখিনতা থেকে। তবে এখন সূর্যমূখী চাষ হচ্ছে বাণিজ্যিকভাবে তেলের চাহিদা পূরণের জন্য।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার মীরকুমুল্লী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দক্ষিন-পূর্ব পার্শ্বে আবুল হোসেনের সূর্যমূখী প্রজেক্টে।

তিনি বলেন, মাত্র ৯০ দিনেই ফলন পাওয়া যায় সূর্যমূখীর। সারি থেকে সারি ৭৫ সে.মি. এবং বীজ থেকে বীজ ৪৫ সে.মি.। প্রতি মাথায় বীজের সংখ্যা ৪০০-৬০০। বীজের রং কাল। ১ হাজার বীজের ওজন ৬৮ গ্রাম। বীজে তেলের পরিমান শতকরা ৪২-৪৪%। জীবনকাল ৯০-১১০ দিন। হেক্টর প্রতি ফলন ১.৬-১.৮ টন। বীজের হার ৮-১০ কেজি/হেক্টর। সূর্যমূখী সারা বছর চাষ করা যায়, তবে অগ্রাহায়ণ মাসের মধ্য থেকে এর চাষ করলে ফলন বেশি পাওয়া যায়। সূর্যমূখী ফুলের গাছ লম্বায় ৮-৯ ফুট হয়ে থাকে।

ফুলের ব্যাস ৩০ সে.মি.। সকল ফুল ফ্যাল ফ্যাল করে তাকিয়ে থাকে সূর্যের দিকে। সূর্য অস্তগেলে ফুলগুলো ঘোমটা পড়ে নিচু হয়ে থাকে। এক মাঠ সূর্যমূখী ফুল যেন ফুল বাগানের অপরূপ দূষ্য। সূর্যমূখী ফুল তার নিজের পরিচয় তুলে ধরে নিজের সৌন্দর্য মুগ্ধ করার মাধ্যমে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এই ফুলের বাণিজ্যিক চাষ হয়ে থাকে। সব চেয়ে বেশি চাষ হয় রাশিয়া, ইউক্রেন ও আজেন্টিনা। এটি শুধু ফুল নয়, মানব দেহের উপকারী তেল সরবরাহ কারী মাধ্যম বটে। বাজারে পাওয়া অন্যান্য সাধারন তেলের তুলনায় এতে আছে উপকারী নানা গুন। এটি কোলষ্ট্রেরলফ্রী। সূর্যমূখী তেলের চাহিদা সারা বিশ্বে।

এই এলাকার কৃষকদের বীজ, সার, কীটনাশক ও পরিচর্যা পদ্ধতি দিয়ে সহযোগিতা করছে উপজেলা কৃষি বিভাগ। স্বল্প খরচে লাভ বেশি হওয়ায় চাষীদের আগ্রহ দিন দিন বেড়ে চলছে।

আপনার মতামত দিন

You must be Logged in to post comment.

তারিখ অনুযায়ী সংবাদ পড়ুন

মে 2022
রবি সোম বুধ বৃহ. শু. শনি
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031  
এইমাত্র পাওয়া
error: দাঁড়ান আপনি জানেন না কপিরাইট আইনে দণ্ডনীয় অপরাধ। কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে নিন।