টাঙ্গাইল শহরের বিশ্বাস বেতকা এলাকার একটি বাড়ি থেকে আবু সাঈদ (৩৪) নামের এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (২৮ জুলাই) দুপুরে ওই এলাকার হুমায়নের ভাড়া দেয়া বাড়ি থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। মরদেহের পাশে ৬ মাসের এক কন্যা শিশু সন্তান পাওয়া গেলেও পলাতক রয়েছেন নিহতের স্ত্রী।


নিহত আবু সাঈদ টাঙ্গাইল সদর উপজেলার উত্তর তারুটিয়ার ওমর আলীর ছেলে। এছাড়াও পলাতক স্ত্রী হৃদয় বানু (৩৪) হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল থানার জয়তুন নেছার মেয়ে।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর সার্কেল মো.সরোয়ার হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।


প্রতিবেশীরা জানায়, প্রায় ছয় মাস যাবৎ আবু সাইদ ও স্ত্রী হৃদয় বানু এই ঘরটি ভাড়া নেন। ঘরে ওই শিশুকে নিয়ে হুদয় বানু একা থাকতেন। মাসে দুই একদিনের জন্য স্বামী আবু সাইদ আসতেন। প্রায়ই তাদের ঝগড়া হতো। এছাড়াও বিভিন্ন ধরণের লোকজন আসতেন তাদের ঘরে। তাদের উভয়েরই এটি দ্বিতীয় বিয়ে ছিল ধারণা তাদের। স্ত্রী হৃদয় বানুর ভোটার আইডি কার্ডেও স্বামীর নাম সাবাজ মিয়া, গ্রাম রাজাপুর ও জেলা হবিগঞ্জ আর হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল থানার জয়তুন নেছার মেয়ে এই তথ্য পাওয়া গেছে।


অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর সার্কেল মো.সরোয়ার হোসেন জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টার দিকে ৬ মাসের শিশু কান্না করছিলো দেখে প্রতিবেশীরা দরজা খুলে উঁকি দিলে মেঝেতে মরদেহটি পরে থাকা দেখে আমাদের খবর দেয়। মরদেহটি উদ্ধার করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। স্ত্রী পলাতক রয়েছে। শিশুটিকে প্রতিবেশীর হেফাজতে রাখা হয়েছে।


তিনি আরও জানান, তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছে।